অশ্লীল হিজাবধারী নারীদের উদ্দেশ্যে; ” মহানবী (সা.) ” যে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন….

ইসলাম ধর্মে নারীদের পর্দার বিষয়ে কড়া নির্দেশনা দেয়া রয়েছে।

বিস্তারিত :

মুসলমান নারীদের সবসময় পর্দা করে থাকতে হবে । আর নারীদের জন্য আল্লাহ পাক পর্দানশীল হওয়াই বাধ্যতামূলক করেছেন। মুসলমান নারীরা তাই বোরখা কিংবা হিজাব পরে নিজেদের লজ্জাস্থান ঢেকে রেখে আল্লাহ তায়ালার হুকুম পালন করেন।

তবে বর্তমান আধুনিক জামানায় মাঝে মাঝে দেখা যায়, অনেক নারী আধুনিক আটোশাঁটো বোরখা কিংবা হিজাব পরে ঘুরে বেড়ায়। মাথায় হিজাব আর দেহে অশ্লীল পোশাক এই শ্রেণীর নারীদের উদ্দেশ্য আবূ হুরায়ররা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু কর্তৃক বর্ণিত, একটি হাদিসে বিশ্বনবী (সা.) কড়া ভাবে বলেছেন, ‘জাহান্নামবাসী দুটি দল রয়েছে। যাদেরকে আমি এখনো দেখিনি ঃ-

একদল এমন লোক যাদের হাতে গরুর লেজের মত লাঠি থাকবে যা দিয়ে তারা লোকদেরকে প্রহার করবে। আর অন্য দল এমন নারী যারা পোশাক পরেও উলঙ্গ থাকে। তারা অন্যদের তাদের প্রতি আকৃষ্ট করবে নিজেরাও অন্যদের প্রতি ঝুঁকবে।

তাদের মস্তক উটের পিঠের কুঁজের মত হবে। তারা জান্নাতে প্রবেশ করবে না। এমনকি জান্নাতের ঘ্রাণও পাবে না। অথচ এর ঘ্রাণ এত এত দূর থেকেও পাওয়া যায়।’ [মুসলিম : ২১২৮]

(Visited 68 times, 1 visits today)

Related Post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *